Amader Product

এফ কমার্স  (F Commerce) কি? এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ

এফ কমার্স  (F Commerce) কি এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ

এফ কমার্স  কি? এ প্রশ্নের উত্তর হয়ত অনেকেই জানেন বাট যারা জানেন না তাদের জন্য আবারও রিপিট করছি। এফ কমার্স এর ইজি ও সহজ সজ্ঞা হল, ফেসবুক প্লাটফর্ম কে ইউজ করে যে বিজনেস করা হয় তাকেই  এফ কমার্স   বলে। অর্থাৎ যে বিজনেসে ওয়েবসাইট তৈরি না করেই সরাসরি ফেসবুক পেজ বা কমিউনিটি ব্যবহার করে যে সব ব্যবসা পরিচালিত হয় তাই এফ কমার্স   ব্যবসা।

আপনারা যারা এফ কমার্স   বিজনেস করছেন বা করবেন বলে ভাবছেন তাদের জন্য আজকের ব্লগটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারন আজ আমি অলোচনা করব-

এফ কমার্স  (F Commerce) কি? এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ।

হয়ত এ প্রবন্ধটি পড়লে আপনার এফ কমার্স  ফেইল হবার সম্ভাবনা কম থাকবে। তাহলে চলুন শুরু করি।

এফ কমার্স   বিজনেস ফেইল হবার কিছু কারণঃ

 

আমাদের অধিকাংশই এফ-কমার্স বিজনেস ফেইল করে থাকে। আজকে খুব সাধারণ কিছু বিষয় নিয়ে জানবো যে বিষয় গুলোর জন্য আমাদের মধ্যে অনেকেই এফ-কমার্স বিজনেস ফেইল করে ।

  • পেইজে রেগুলার পোস্ট না করা

আপনার অনালাইন বিজনেসে একটি বিজনেস পেইজ হচ্ছে একটি দোকানের মতো । অনেক সময় পেইজে রেগুলার পোস্ট করা হয় না। এতে করে পেইজের রিচ ডাউন হয়।

নতুন অডিয়েন্স আসলেও পোষ্ট কম হওয়ার বা এংগেজমেন্ট না হওয়ায় কাষ্টমার ভরসা করতে পারে না। রেগুলার পোস্ট না করাও এফ-কমার্স বিজনেস ফেইলের অন্যতম কারণ।

  • পেইজকে অপটিমাইজ না করা

বিজনেস পেইজ খোলার পর সর্বপ্রথম যে কাজ করা হয় তা হচ্ছে এটিকে অপটিমাইজ না করা। অনেকেই মনে করেন এটি কী আর বিষয়! কিন্তু বিজনেস পেইজ অপটিমাইজেশন আপনার প্রফেশনালিজমের একটি অংশ।

অনেকে মনে করেন যে ফেসবুক পেইজ খুলে লোগো, কাভার ফটো আর এবাউট লিখলেই কমপ্লিট পেইজ সেটাপ হয়ে যায়। যেটা অনেক বড় একটা ভুল ধারণা। আপনার পেইজ যদি সম্পূর্ন অপটিমাইজড হয় তাহলে এটার মাধ্যমে আপনি অনেক অর্গানিক রিচ পেতে পারেন ।

  • অরিজিনাল পোস্ট করুন

পেইজে পোস্ট আমাদের অবশ্যই রেগুলার কাজে অংশ হওয়া উচিত। কিন্তু আফসোস অনেকে পেইজে লিখে পোস্ট করতেই চায় না। আরেক পেইজ থেকে কপি করে এনে পোস্ট দেয়।

প্রতিটি ব্র্যান্ডের নিজস্বতা বলে কিছু আছে। তাই আপনিও নিজের পোষ্ট নিজে তৈরী করে আপনিও নিজস্বতা তৈরী করুন। তখন মানুষ আপনার সাথে বেশী এংগেজ হবে।

  • দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য না থাকা

অনলাইন বিজনেস ফেইল হবার অন্যতম বড় কারণ হচ্ছে এর কোনো দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য না থাকা । আসলে অধিকাংশ মানুষ পার্টটাইম বিজনেস ফোকাস করে এফ-কমার্স বিজনেস ওপেন করে।

যার ফলে কিছুদিন লস করার পর তার বিজনেস ফেইল করে থাকে। আর ব্যবসা করতে মন চায় না। এই কারণের জন্য বেশির ভাগ এফ-কমার্স

  • পেইজের মেসেজ ও কমেন্ট ইগনোর করা হয়

অনেকেই একটি কাজ করেন তা হলো আপনার বিজনেস পেইজের পোষ্টে কেউ মেসেজ বা কমেন্ট করলে রিপ্লাই দেরিতে দেন। এটা বলতে কোনো সমস্যা নেই যে, ক্লায়েন্ট হারানোর সবচেয়ে বড় কারণ এটি। যদিও কেউ ক্লায়েন্ট হারাতে চায় না। কিন্তু ফেসবুকের এলগরিদম বলে যে আপনি যদি ৩০ মিনিট লেট করে কোনো রিপ্লাই দেন তবে সেই ক্লায়েন্ট হারানোর চান্স ৭০- ৮০%। আর আমাদের দেশে তো অনেকেই আছে অন্যের পোষ্টে কমেন্ট করে আপনার কাষ্টমার ভাগিয়ে নিয়ে যায়।  এগুলো হলো এফ কমার্স বিজনেসে ফেইল হবার কিছু কারণ।

আরও পড়ুনঃ ই কমার্স প্লাটফর্ম কোনটি বেছে নিতে হবে? ফেসবুক না কি ই কমার্স ওয়েবসাইট

 

এফ কমার্স  (F Commerce) কি এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ
এফ কমার্স  (F Commerce) কি এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ

আপনারা পড়ছেনঃ এফ কমার্স  (F Commerce) কি? এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ

 

এবার আলোচনা করব কীভাবে আপনি এফ কমার্স  বিজনেসে সফল হবেন।

মনে রাখবেন, কাস্টমার হল সকল ব্যবসায়ের প্রাণ। তাই প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানই চায় তাদের কাস্টমার সংখ্যা বৃদ্ধি করার জন্য এবং এতে করে ব্যবসায় দ্রুত সম্প্রসারন হয়। যদিও আপনার প্রতিষ্ঠান সঠিক পথ ধরে এগিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু আপনার কাস্টমার সিদ্ধান্ত নিবে তিনি আর আপনার প্রতিষ্ঠানের পন্য বা সেবা চান নাকি চান না । আপনি হয়ত তা অনেক সময় নাও জানতে পারেন। তাই প্রতিনয়ত মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার কাস্টমারের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

কাস্টমার হ্যান্ডেলিংঃ

অনলাইনে আপনার বিক্রয় ,আপনার কাস্টমার অনেকটাই নির্ভর করে আপনি কিভাবে আপনার অনলাইনে কাস্টমারদের কে হ্যান্ডেলিং করছেন তার উপর। অনেক সময় দেখা যায়, সঠিক ভাবে কাস্টমার হ্যান্ডেলিং করতে না পারার জন্য আপনার বিক্রয় ভালো হয় না এবং কাস্টমার হারাতে হয় । একজন কাস্টমার আপনার ব্যবহারে স্যাটিসফাইড হলে সে আপনার থেকেই বার বার প্রোডাক্ট কিনতে আগ্রহী হবে। ৭৭% কাস্টমার তাদের ফ্রেন্ডদের কে আপনার কোম্পানি থেকে প্রোডাক্ট কিনতে তখনই রিকোমেন্ড করবে যখন আপনার সার্ভিস সম্পর্কে তার পজিটিভ ধারণা জন্মাবে।

অনলাইন কাস্টমার হ্যান্ডেলিং এর ৮ টি টিপস দেওয়া হলো:-

১.ধৈর্য ধারণ ।

২.মনোযোগ দিয়ে কাস্টমার এর কথা শুনুন ।

৩.ঠিক সময়ে রিপ্লে করা ।

৪.সমস্যা সমাধানের পরামর্শ প্রদান ।

৫.ভালো পণ্য সরবরাহ ।

৬.টাইম ম্যানেজমেন্ট করা ।

৭.ডেলিভারি সঠিক সময়মত করা ।

৮.আপডেট থাকা ।

এফ কমার্স  বিজনেসে কাস্টমার ধরে রাখার কিছু কৌশলঃ

এফ-কমার্স মানেই হচ্ছে প্রতি্যোগীতার এক বিশাল সাগরে নেমে যাওয়া। বিগত এক বছরে বিজনেস পেইজের সংখ্যা বহুগুনে বেড়ে গেছে। অনলাইন বিজনেস সম্পর্কে বিন্দুমাত্র যার ধারণা নাই সেও একটি পেইজ খুলে বসে আছে। ফলে কাস্টমার বিভাজন হচ্ছে। এই প্রতিযোগিতায় আপনাকে টিকে থাকতে হলে প্রতিনিয়ত কৌশল অবলম্বন করতে হবে, ভাবতে হবে কি করলে কাস্টমার ধরে রাখা যায়। কিছু অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি। হয়তো আপনাদের কাজে লাগতে পারে।

১. সমস্যার পাশাপাশি সমাধানের কথাও বলুনঃ- যখন মার্কেটিং করবেন তখন একজন বিশেষজ্ঞ বা অভিজ্ঞ ব্যক্তিকে নির্বাচন করুন যারা সমস্যার পাশাপাশি কিভাবে সমাধান পাবে সে সম্পর্কে বলে দেয়। আপনার ত্রুটিগুলি এবং দুর্বলতা সম্পর্কে কথা বলার মাধ্যমে ক্রেতারা আপনার মধ্যে নিজেকে দেখবে এবং প্রতিষ্ঠান ও ক্রেতা উভয়ের মধ্যে একটি ভাল সম্পর্ক সৃষ্টি হবে এতে করে।

২.ডেলিভারিঃ অনলাইন বিজনেসের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর হচ্ছে ডেলিভারি সেক্টর। ডেলিভারি ম্যানের ব্যবহারের উপর কাস্টমারের সেটিস্ফেকশন নির্ভর করে। আপনার ডেলিভারি ম্যানের ব্যবহারের উপর কাস্টমার যদি সেটিস্ফাইড থাকে তাহলে সেই কাস্টমার আপনার কাছে দ্বীতিয়বার আসতে বাধ্য। তাই আপনার ডেলিভারি ম্যানকে ট্রেনিং দিন।

৩.ডেলিভারি কমপ্লিট হবার পর মনিটর করাঃ প্রোডাক্ট ডেলিভারি হবার পর আপনি কাস্টমারকে কল দিয়ে এক মিনিট কথা বলুন। কাস্টমারকে জিজ্ঞেস করুণ, আপনার সার্ভিস তার কেমন লেগেছে, ডেলিভারি ম্যানের ব্যবহারে সন্তুষ্ট কিনা।

৪. ডেটা সংরক্ষন করাঃ কাস্টমারদের ডিটেইলস সংরক্ষণ করে রাখুন। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পরবর্তীতে অনেক কাজে দেবে আপনাকে।

৫.কমিউনিটির সাথে সম্পর্ক স্থাপনঃ যদি ক্রেতার সাথে ভাল সম্পর্ক না থাকে তাহলে আপনি বুঝবেন না যে তারা কি ধরনের পন্য বা সেবা চায়। তাই আপনাকে দেখতে হবে তারা কোথায় বেশী সময় ব্যয় করে. সেক্ষত্রে সার্ভে বা জরীপ, গবেষণা, বিভিন্ন প্রোগ্রাম ও ওয়ার্কশপের আয়োজন করলে সবচেয়ে বেশি ভাল হয়। এই সকল জায়গায় ক্রেতারা এখানে তাদের ব্যক্তিগত মতামত প্রকাশ করবে এবং তখন আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন তারা কেমন ধরনের পন্য বা সেবা চায় এবং সেইসাথে ভাল নেটওয়ার্কিং সৃষ্টি হবে উভয় পক্ষের মধ্যে ।

৬.নিয়মিত আপডেট জানানোঃ নতুন কোন প্রোডাক্ট আসলে বা অফার দিলে তা পুরাতন কাস্টমারদের আগে আপডেট দিন। আপনার নতুন প্রোডাক্ট বা অফার সম্পর্কে খুব সুন্দর করে জানানোর চেষ্টা করুন।

৭. এক্সট্রা সুবিধা দেওয়াঃ যে কাস্টমার আপনার কাছে রিটার্ন আসবে তাকে চেষ্টা করবেন এক্সট্রা কিছু সুবিধা দেওয়ার। আবার খুব বেশি দিতে যাবেন না। সেটা হতে পারে সিম্পল ডিসাকাউন্ট, ডেলিভারি চার্জ ফ্রী, ইন্সটেন্ট ডেলিভারি।

৮. সারপ্রাইজ গিফটঃ মাঝে মাঝে কাস্টমারকে সারপ্রাইজ গিফট দিতে পারেন। গিফটটা খুব দামী হতে হবে এমন নয়। ধরুন, কাস্টমারের ছোট বেবি আছে। আপনি তার বেবি’র জন্য চকোলেট বা অন্য কিছু গিফট করলেন। এতে কাস্টমার আপনার প্রতি আলাদা একটা রেসপেক্ট চলে আসবে।

প্রিয় ভিজিটর, এই হলো, এফ কমার্স  (F Commerce) কি? এফ কমার্স  ফেইল হবার কিছু কারণ। কথা হবে সামনের কোন ব্লগে সে পর্যন্ত ভাল থাকুন। সুস্থ থাকুন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook
Twitter
LinkedIn

রিলেটেড আর্টিকেল

মুফতি রেজাউল করিম

ওয়েব ডিজাইনার

আসসালামু আলাইকুম। আমি একজন ওয়েব সাইট ডিজাইনার। আপনার বাজেটের মধ্যে সেরা সার্ভিস দেয়ার চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ।

Divider
Sponsor
বিড়ালের নখের আঁচড় কি বিপজ্জনক?

বিড়ালের নখের আঁচড় কি বিপজ্জনক? জরুরী পরামর্শ

আমরা অনেকেই শখের বসে বিড়াল পুষি। তবে এ বিড়াল আপনার জন্য অনেক সমস্যার কারণ হতে পারে। আজ আলোচনা করব, বিড়ালের নখের আঁচড় কি বিপজ্জনক? জরুরী

Read More
ঈদের শুভেচ্ছা পোস্টার ডিজাইন

ঈদের শুভেচ্ছা পোস্টার ডিজাইন- 2024

আসসালামু আলাইকুম। আজ আলোচনা করব, কীভাবে আপনারা নিজেরাই ঈদের শুভেচ্ছা পোস্টার ডিজাইন করতে পারবেন তা নিয়ে। অনেকেই চান যে, সামনে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আপনার বন্ধু

Read More